উদ্দেশ্যে প্রনোদিত রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হচ্ছেন সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও তাঁর পরিবার

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ১০:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০২০

ডেস্ক নিউজঃ উদ্দেশ্যে প্রনোদিত ভাবে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হচ্ছেন চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার কৃতি সন্তান, চৌকস পুলিশ অফিসার ও কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

যখন শিবগঞ্জের জনগণের মাঝে আস্থা ভালোবাসার প্রতীকে পরিনত হয়েছে সৈয়দ পরিবার তখনই একটি চক্র বিভিন্নভাবে মিথ্যা বানোয়াট ও কুরুচিপূর্ণ শব্দ ব্যবহার করে বিপক্ষে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে।

এসব অভিযোগ করে সৈয়দ পরিবারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদ বিবৃতি দিয়েছেন শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

তিনি তাঁর প্রতিবাদে জানান উদ্দেশ্য মুলকভাবে এলাকার ঘটনায় সৈয়দ নুরুল ইসলাম কে জড়ানো হয়েছে। টুটুল খানের মাকে মেয়র রাজিনের সমর্থকদের কুরুচিপূর্ণ গালিগালাজ ও তার সমর্থকের উপর হামলার জের ধরে গত ২৬ আগস্ট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক টুটুল খান ও পৌর মেয়র রাজিনের মধ্যে সংঘর্ষেও কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম কে উদ্দেশ্য মুলক ভাবে জড়ানো হয়। এমনকি ব্যানারে সৈয়দ নুরুল ইসলামের নাম উল্লেখ করে মানববন্ধন করে রাজিনের সমর্থকরা। মানববন্ধনে সৈয়দ নুরুল ইসলাম কে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ ও মান হানিকর বিভিন্ন মন্তব্য করে ও কুরুচিপূর্ণ শব্দের প্লাকার্ড প্রদর্শন করে রাজিনের সমর্থকরা।

সৈয়দ নুরুল ইসলামকে নিয়ে মানববন্ধনে প্লাকার্ড


প্রতিবাদ বিবৃতিতে সৈয়দ নজরুল ইসলাম আরো উল্লেখ করেন, ২০১৩ সালে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে কেন্দ্র করে জামাত-শিবিরের জ্বালাও পোড়াও ও হামলার শিকার হয়ে শিবগঞ্জের আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক সহ ১১ জন নেতাকর্মী নিহত হন। আহত ও পঙ্গুত্ব বরণ করতে হয়েছে প্রায় অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীকে।ঐ সময় আহত মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের এসব দলীয় নেতাকর্মীদের চিকিৎসার খরচসহ অনেকের চাকরির ব্যবস্থা করে দেন সৈয়দ নুরুল ইসলাম।এভাবে তিনি শিবগঞ্জের মাটিতে তার প্রচেষ্টার ফলে প্রায় ৩০ হাজার মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে র কর্মী তৈরি করেন।
তিনি আরো উল্লেখ করেন, মেয়র রাজিন সবসময় ক্ষমতাসীন এমপিদের সাথে ঘেঁষে তাদের বিতর্কিত করে,শিবগঞ্জ পৌরসভার কর্মচারীরা নিয়মিত বেতন পায় না,অনৈতিক পন্থায় হাটবাজার বিক্রি সহ রামরাজত্ব কায়েম করেছে।

গণমাধ্যম কর্মীদের শিবগঞ্জের মাটিতে সরেজমিনে এসে রাজিনের অপকর্ম দেখার আহবান জানান সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

পোস্টটি শেয়ার করুন