উদ্ভাসিত হোক নতুন দিগন্ত

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ৭:০৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২

এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন: সংস্কৃতিগত অভিন্নতায় আবেগকে প্রাধান্য দেওয়া; অতঃপর, রাজনৈতিক স্বার্থ পারস্পরিক আপসে নিষ্পত্তি হওয়া। প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যকার এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীর বহু অঞ্চলে রয়েছে। তেমন মিত্রতা তখন সীমান্তের জানালাকেও অতিক্রম করতে চায়। উত্তীর্ণ প্রেম উঁকি দিয়ে বলে, আমরা দুটি দেশ আলাদা হলেও একে অপরের স্বার্থরক্ষায় স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভালোবাসা ভর করে।

দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার যে একান্ন বছরের সম্পর্ক, তা দুটি দেশের পররাষ্ট্রনীতির আওতায় থেকে চুক্তিনির্ভর স্বার্থপরতাকে নিশ্চিত করেনি। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত তেমন উদাহরণ দেখাতে সক্ষম হয়েছিল।

প্রতিবেশী ভারতকে নির্ভার রাখার অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক সত্তা হিসাবে তাই সর্বাগ্রে শেখ হাসিনার নামটিকে ধারণ করার অঘোষিত বাস্তবতা রয়েছে। এদিকে বৈশ্বিক সংকটে নাজেহাল এ পৃথিবী। অতি অবশ্যই স্বাধীন রাষ্ট্রগুলো। অতিমারি কোভিড-১৯ পৃথিবী নামক গ্রহকে স্বস্তিতে রাখেনি, যার প্রভাবে অর্থনৈতিকভাবে অতি সচ্ছল দেশগুলোও বিপদে পড়েছে। উপরন্তু, রাশিয়া-ইউক্রেন রণসমাচার বৈশ্বিক জায়গা থেকে ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’ হয়েই ধরা দিয়েছে। ঠিক এমন এক প্রেক্ষাপটের ওপর দাঁড়িয়ে এ পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা দিলি­ যাচ্ছেন। সূত্রমতে, তিনি ৫ সেপ্টেম্বর ভারতে পা রাখবেন। স্বভাবতই বাংলাদেশ ও ভারতের ভবিষ্যৎ সম্পর্ক এবং ভালোবাসাকে আরও একবার ঝালিয়ে নেওয়ার একটা মাহেন্দ্রক্ষণ তৈরি হয়েছে।

সম্প্রতি ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং একটি যুদ্ধজাহাজের উদ্বোধনকালে বলেছেন, বাংলাদেশের চেতনা ও আদর্শিক অবস্থানকে শ্রদ্ধা করতে হবে। তিনি প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক সুসম্পর্কের পাশাপাশি সামরিক ক্ষেত্রকেও গুরুত্ব দিয়ে বলেন, প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে দিলি­র সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক নিশ্চিত করতে হবে। বাংলাদেশ সরকার ধর্মীয় হিংসার উন্মাদনা ও কট্টরপন্থিদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। যেভাবে বাংলাদেশ উন্নতির দিকেও ধাবিত হচ্ছে, প্রতিবেশী দেশ হিসাবে আমরা উচ্ছসিত।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ‘সাগর’ নীতি বাস্তবায়নের অংশ হিসাবে রাজনাথ সিং ফলত একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রতিরক্ষানীতি দাঁড় করাতে চান। যেখানে তিনি বাংলাদেশকে অতি গুরুত্ব দিয়ে অপরাপর প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গেও সম্পর্ক জোরদারে থাকতে চান বলে জানান দিয়েছেন।

বিশ্ব রাজনীতির নতুন নতুন সমীকরণ হচ্ছে, হতে থাকবে। বাংলাদেশ ও ভারত শুধু ভৌগোলিক পর্যায়ে অতি সীমান্ত সম্পর্কেই আবদ্ধ নয়। দুটি দেশের সামাজিক নিরাপত্তা, অর্থনীতি, শিল্প, সাহিত্য, রাজনীতি, যোগাযোগব্যবস্থাসহ নানা ক্ষেত্র পরস্পরের ওপর নির্ভরশীল। ঢাকা-দিলি­ সম্পর্কের বহুমাত্রিক সম্পর্কের পরিণতি তখনই ব্যঞ্জনায় সঁপে প্রকটিত হয়, যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনে নেতৃত্ব দেওয়া দল আওয়ামী লীগ ও ভারতের রাজনৈতিক গবেষণা উইংয়ের মধ্যকার আত্মিক বন্ধনে শপথ নিয়েছিল, আমরা একে অপরের বন্ধু হয়েই থাকব।

একাত্তরে প্রায় এক কোটি শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়া এবং সামরিক সহায়তা প্রদানসহ মিসেস ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশের মানুষের মুক্তি অর্জনে যে ভ‚মিকা ১৯৭১ সালে রেখেছিলেন, তা বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনকে ত্বরান্বিত করেছিল। বঙ্গবন্ধুর অনুরোধে স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশ থেকে খুব অল্প সময়ের মধ্যে ভারতীয় মিত্রবাহিনীকে ফেরত নিয়ে যাওয়ার মধ্য দিয়ে মিসেস গান্ধী যে উদারতা দেখিয়েছিলেন, তা ইতিহাস সৃষ্টি করে। পশ্চিম পাকিস্তানি সামরিক শাসনের নিষ্পেষণে পূর্ব বাংলার মানুষ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে যখন পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে, তখন ভারত সরকার যে সহায়তা করেছিল তা বাংলার মানুষ কখনো ভুলবে না।

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার পররাষ্ট্রনীতির মধ্যে বিস্তর ফারাক রয়েছে। ভারতে সরকার পরিবর্তন হলেও তাদের আন্তর্জাতিক নীতির পরিবর্তন হয় না। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ ব্যতীত অন্য কোনো দল সরকারে এলে তাদের মধ্যকার ভারতবিদ্বেষী মনোভাবই শুধু প্রকাশ পায় না, ভারতের বিপক্ষে জনমত গঠনে সেই সরকার তৎপর হয়।

এদিকে সেপ্টেম্বর বৈঠকে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক আলোচনায় যৌথ নদী কমিশন বৈঠকের বৃত্তান্ত নিয়ে অভিন্ন নদীগুলোর পানিবণ্টন নিয়ে আলাপ হবে বলে আশা করা যায়। তিস্তা চুক্তির সুফল বাংলাদেশ পেতে চায়। এবার কুশিয়ারা পানিবণ্টন নিয়ে নতুন একটি চুক্তি হতে পারে বলে অনুমিত হয়।

আলোচনায় আছে সামরিক সরঞ্জাম ক্রয় ও ঋণ নেওয়ার দিকটিও। মেরিটাইম সিকিউরিটির জন্য ভারত থেকে রাডার ক্রয় নিয়েও কথা হবে বলে চাউর আছে। উপ-আঞ্চলিক এনার্জি হাব গঠন নিয়ে আলোচনা এগোতে পারে। বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, ভুটানকে নিয়ে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প, এর নেতৃত্বে রয়েছে ভারত? বাংলাদেশ নেপাল থেকে বিদ্যুৎ আনতে চায়। একই সঙ্গে এ অঞ্চলে জ্বালানি নিরাপত্তা কানেক্টিভিটি বিষয়টি নিয়ে যৌথভাবে কাজ করতে চায় বাংলাদেশ?

শেখ হাসিনার এ সফরে সমন্বিত বাণিজ্য চুক্তি প্রাধান্য পাবে। সেপা (কমপ্রিহেনসিভ ইকোনমিক পার্টনারশিপ অ্যাগ্রিমেন্ট) চুক্তিটি হলে ভারত ও বাংলাদেশের পণ্য দুই দেশে শুল্কমুক্ত প্রবেশের সুবিধা পাবে। বাংলাদেশ এরই মধ্যে এ চুক্তি অনুমোদন করেছে। একই সঙ্গে বাংলাদেশ অ্যান্টি ডাম্পিং নীতি প্রণয়নে কাজ করছে।

অন্যদিকে ২০১৫ সালের জুনে ভারত-বাংলাদেশের সীমান্ত চুক্তির মাধ্যমে ভারতের ১১১টি ছিটমহল এবং বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল বিনিময় হয়। এতে নাগরিকত্বহীন ৫০ হাজারের বেশি মানুষ তাদের দীর্ঘ প্রতীক্ষিত নাগরিকত্ব লাভ করে। দুই দেশ তাদের সীমান্তবর্তী চোরাচালান সমস্যার সমাধানে এবং সৌহার্দ বৃদ্ধির জন্য সীমান্ত হাটের ব্যবস্থা করে। ২০২২ সালের এপ্রিলের হিসাব অনুযায়ী, সাতটি সীমান্ত হাট প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এবং আরও নয়টি রয়েছে উদ্বোধনের অপেক্ষায়। ছিটমহল নিয়ে তাই আলোচনা হবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে।

ভারতের দেওয়া লাইন অব ক্রেডিটের বেশির ভাগ অংশই পারস্পরিক যোগাযোগ উন্নয়নের জন্য নির্ধারিত। যার মাধ্যমে শুধু বাংলাদেশ ও ভারত নয়, নেপাল, ভুটানের সঙ্গেও জনসংযোগ স্থাপিত হবে। এবারও তেমন আলোচনার ধারাবাহিকতা থাকবে বলে আশা করা যায়। বলা বাহুল্য, পদ্মা রেললিংক ও খুলনা-মোংলা রেলপথ দুই দেশের জন্য অনন্যদৃষ্টান্ত স্থাপন করবে। বাংলাদেশ থেকে বছরে ১০ লাখের বেশি মানুষ ভারতে ভ্রমণ করে। ২০২১ সালে ভারত থেকে মালবাহী ট্রেনে পণ্য পরিবহণ করে ২০০ কোটি টাকা আয়ও করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

ইতিহাস বলছে, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল ১৯৭২ সালে। ২০১৫ সালে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা নবায়ন হয়। বাংলাদেশের স্থিতিশীল অর্থনৈতিক উন্নয়ন ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর জন্য নতুন সুযোগ সৃষ্টি করছে। গত এক দশকে বাংলাদেশ থেকে রপ্তানি তিনগুণ বেড়ে ২০১৮-১৯ সালে ১ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করেছে। ২০১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশে ভারতীয় রপ্তানি ছিল ৮.২ বিলিয়ন ডলার এবং আমদানি ১.২৬ বিলিয়ন ডলার। প্রকাশিত তথ্যানুসারে, ২০২১-২২ অর্থবছরে যুক্তরাষ্ট্র, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও চীনকে পেছনে ফেলে ভারতের চতুর্থ বৃহত্তম রপ্তানি গন্তব্য হয়েছে বাংলাদেশ। শেখ হাসিনা ও নরেন্দ মোদি এ ইস্যুতেও তাদের আলোচনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন ধরে নেওয়া হচ্ছে।

প্রতিরক্ষা নীতি প্রণয়নে উভয় দেশ এবার একটি চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে যেতে পারে বলে মনে করার সুযোগ আছে। এদিকে জলসীমানা সুরক্ষায় ২০২০ সালে ‘বঙ্গসাগর’ নামে যৌথ নৌ-মহড়াও অনুষ্ঠিত হয়। ভারত বাংলাদেশ সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির প্রশংসা করেছে এবং এ নীতি সীমান্তবর্তী দুই দেশের জন্যই আশীর্বাদস্বরূপ বলে স্বীকার করেছে। ঢাকা-দিলি­ পারস্পরিক বিশ্বাস আরও জোরদার হয়, যখন বাংলাদেশ ১৮ বছর পর ২০১৫ সালে উলফার শীর্ষনেতা অনুপ চেটিয়াকে ভারত সরকারের কাছে হস্তান্তর করে।

বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলার জন্য দুই লেজেন্ডারি রাজনীতিক শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি একটি অর্থবহ বৈঠক করার মধ্য দিয়ে দুই দেশের মিত্র সম্পর্ককে আরও মজবুত করবেন বলে বাংলাদেশের মানুষ বিশ্বাস করে। বাংলাদেশ-ভারতের দ্বিপাক্ষিক সুসম্পর্ক আঞ্চলিক পর্যায়ের গণ্ডি পেরিয়ে বৈশ্বিক শান্তি ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রকে আরও সুদৃঢ় করে একটি সমৃদ্ধ অঞ্চল গড়ে তোলার অভিপ্রায়ে সাংস্কৃতিক মনবোধে ভেসে যাক। যে মন বৈশ্বিক রাজনীতির মারপ্যাঁচে দিগভ্রান্ত হবে না। সাম্রাজ্যবাদী শক্তির কুটচালে বাংলাদেশে ইসলামের নামে ধর্মীয় অপশক্তির সঙ্গে জনবিচ্ছিন্ন রাজনীতিকদের উচ্চাভিলাষী রাজনৈতিক ইচ্ছার মৃত্যু হোক। ঢাকা-দিলি­ সুসম্পর্ক ও নৈতিকতা সে পথকে মসৃণ করতে পারে। বাংলাদেশের জনশ্রেণির জন্য যে ব্যক্তি জীবন দেওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকেন, সেই শেখ হাসিনা জনস্বার্থ কী, তা বোঝেন। তিনি সংগ্রামী, তিনি বিপ্লবী, তিনি বিদ্রোহী-আবার, তিনি মূলধারার রাজনীতির শ্রেষ্ঠ পথপ্রদর্শক।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কোন মতবাদের ওপর দাঁড়িয়ে ছিলেন, তা দেশবাসীর জানা দরকার। তিনি ছিলেন সেই ব্যাবহারিক সত্তা, যিনি নিজেদের উপযোগী শাসনব্যবস্থা কায়েম করে নিজস্ব রাজনৈতিক কৃষ্টিকে পরিচিত করে সোনার বাংলা করতে চেয়েছিলেন। তার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বাবার স্বপ্নপূরণে এক দার্শনিক নেত্রী হয়ে বাংলাদেশের স্বার্থ উদ্ধারে এক অদম্য সত্তা। শেখ হাসিনার দিল্লি সফর সফল হোক। বাংলাদেশের স্বার্থ উদ্ধারে তা অনিবার্যও বটে।

লেখক:
প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
মাননীয় মেয়র, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন।

পোস্টটি শেয়ার করুন