বরেন্দ্র অঞ্চলে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে নবজাগরণ ফাউন্ডেশন

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ১০:০৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ২৬, ২০২০

নবজাগরণ ফাউন্ডেশন বরেন্দ্র অঞ্চলের একটি অন্যতম  স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন,যেটি ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের  পরিসংখ্যান বিভাগের একদল স্বপ্নবাজ তরুনের  হাত ধরে যাত্রা শুরু করে।

এটি মূলত সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করার জন্য প্রতিষ্ঠিত হলেও,সেই গন্ডি পেরিয়ে আজ বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগোষ্ঠীর মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও শীতবস্ত্র বিতরণ, বিভিন্ন দুর্যোগকালীন  সহযোগিতা সহ বিভিন্ন কার্যক্রম  করে থাকে।প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি আহমেদ সজীব,যার কথা না বললেই নয়,তিনি এবং তার কয়েকজন বন্ধু মিলে সূচনা করেছিলেন এই পরিবারটির।
যাদের অনুপ্রেরণায় আজ নবজাগরণ ফাউন্ডেশন বরেন্দ্র অঞ্চলের অন্যতম সংগঠনে রূপলাভ করেছে তারা হলেন,বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন মাতিন স্যার,পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক ড.মনিমুল হক স্যার,রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের অধ্যাপক  সাদিকুল ইসলাম সাগর স্যার সহ আরো অনেকে।হাসিব আল মাসুম সুমন ভাই এবং নবজাগরন পরিবারের হবে প্রচেষ্টায়  ২০১৪ সালের ১৪ জুলাই রাজশাহীর গনিতহালায় হরিজান পল্লিতে নবজাগরণ শিক্ষানিকেতনের যাত্রা শুরু হয়।উল্লেখ্য যে,তখন হরিজান পল্লিতে শিক্ষার আলো একেবারেই ছিল না।রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল স্বপ্নদ্রষ্টা হরিজান পল্লির সুবিধাবঞ্চিত  বাচ্চাদের অভিভাবকদের দ্বারে দ্বারে ছুটে যেয়ে শিক্ষার মাধুর্য ছড়িয়ে দিতে থাকে,তাদের মাঝে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। সুবিধা বঞ্চিত বাচ্চাদের শিক্ষা উপকরণের দায়িত্ব নেয় নবজাগরণফাউন্ডেশন।

নবজাগরণ শিক্ষা নিকেতন ইদ ও পূজায় বাচ্চাদের হাতে  নতুন জামা তুলে দেয় নবজাগরণ ফাউন্ডেশন। এখন প্রশ্ন আসতে পারে,এসব অর্থের যোগান হয় কিভাবে? এর উত্তরে বলতে চাই , প্রতি বছর নবজাগরণ ফাউন্ডেশন রাজশাহী  বিশ্ববিদ্যালয়ের  বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক, ৬৯ এর গণ আন্দোলনে শহীদ ড.শামচ্ছুজোহা স্যারের স্বরনে অমর একুশে বইমেলার আয়োজন করে থাকে,এই বইমেলার লভ্যাংশের সম্পূর্ণ অর্থ ব্যায় করা হয় সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের জন্য।তাছাড়া নবজাগরণ ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টামন্ডলীরাও ফান্ড প্রদান করে থাকেন।যাদের প্রচেষ্টায় নবজাগরণ আজ এই অবস্থানেঃ আহমেদ সজীব ,কে এম আবু হোরায়রা ,খন্দকার মারজান আতিক কিরন ,বজলুর রসিদ সজল সহ প্রমুখ….
আজ নবজাগরণ ফাউন্ডেশন শুধু সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে কাজ করার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়,নিয়মিত বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি সহ পরিষ্কার পরিছন্নতা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।তাছাড়াও ২০ নভেম্বর আন্তর্জাতিক শিশু দিবস উপলক্ষে সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে একদিন স্বপ্নের দিন পালন করে থাকে।নবজাগরণের প্রতিটি সদস্য,স্বেচ্ছাসেবক একটি করে শিশুদের দায়িত্ব নেয়,যেদিন তাদের স্বপ্নের কথা শুনা হয়,তাদের নিয়া খেলাধুলা,গান বাজনা,ঘুরাঘুরি করা হয়,সেইদিনটি তাদের স্বপ্নের মত করে রাঙিয়ে দেয়ার চেষ্টা করা হয়।বর্তমান নবজাগরণ ফাউন্ডেশন সভাপতি মোঃখালিদ হাসান ,সেক্রেটারি রিফাত হোসাইন ভালবাসা দিয়ে আগলিয়ে রাখছে নবজাগরণের প্রতিটি স্বেচ্ছাসেবককে।    

লেখকঃ
আবু সাহাদাৎ বাঁধন 
ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়। 
স্বেচ্ছাসেবক
নবজাগরণ ফাউন্ডেশন।

পোস্টটি শেয়ার করুন