মেট্রোরেল অহংকারের আরেকটি পদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ৪:৪৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ২৮, ২০২২

ট্রিবিউন ডেস্ক: মেট্রোরেল অহংকারের আরেকটি পদক মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন: নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু করে বাঙালি সারাবিশ্বে মর্যাদা পেয়েছে। আর মেট্রোরেলের মাধ্যমে অহংকারের আরেকটি পদক, বাংলার মানুষের মুকুটে সংযোজন করলাম।

বুধবার (২৮ ডিসেম্বর) দিয়াবাড়ি খেলার মাঠে তৈরি উদ্বোধনী দেওয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন: মেট্রোরেল পুরোপুরি চালু হলে কর্মসংস্থান বাড়বে। ২০৩০ সালের মধ্যে এমআরটি নেটওয়ার্ক বাস্তবায়ন হলে অনেক অর্থ সাশ্রয় হবে। এই আধুনিক পরিবহন ব্যবস্থা চালু হলে নতুন ১২ হাজার গ্রাজুয়েট প্রকৌশলী ও মাঠ প্রকৌশলী কাজ পাবে। আমরা নিজেরাই স্মার্ট জনগোষ্ঠী তৈরি করবো, তারাই মেট্রো পরিচালনা করবে।

অনেক টাকা খরচ করে মেট্রো করা হয়েছে জানিয়ে, এটার মান ঠিক রাখা, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা ব্যবহারকারীদের দায়িত্ব মনে করিয়ে দিয়ে যত্ন নিয়ে ব্যবহার করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন: আজকে যানজট বেড়েছে কেন? মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। আর্থিক সক্ষমতা বেড়েছে। গাড়ি ব্যবহারকারী বেড়েছে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বেড়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের মানুষের অগ্রযাত্রা বৃদ্ধি পায়।

উদ্বোধনের পর রুটের মধ্যবর্তী স্টেশনে কোনো স্টপেজ ছাড়াই উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত চলবে মেট্রোরেল। পরদিন (বৃহস্পতিবার) থেকে যাত্রীরা মেট্রোরেলে যাতায়াত করতে পারবেন।

প্রাথমিকভাবে উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ছয়টি বগিবিশিষ্ট ১০ সেট ট্রেন চলাচল করবে। পরে চলাচলের সময় বাড়ানো হবে এবং চাহিদা অনুযায়ী ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে। সম্পূর্ণভাবে মেট্রোরেল চলাচল শুরু হলে প্রতি সাড়ে তিন মিনিট অন্তর একটি ট্রেন চলবে। প্রতিটি স্টেশনে, যাত্রীদের ওঠা ও নামা সম্পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত ট্রেনটি অপেক্ষা করবে। প্রতিটি ট্রেন ২,৩০০ জন যাত্রী নিয়ে ঘণ্টায় ১০০ থেকে ১১০ কিলোমিটার গতিতে চলতে পারে।

চ্যানেল আই

পোস্টটি শেয়ার করুন