রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপিত হবে শহীদ শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ১:০৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০২০

ডেস্ক নিউজঃ জাতিরপিতার জ্যেষ্ঠপুত্র শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী ৫ আগস্ট এখন থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপিত হবে।
এ সংক্রান্ত প্রস্তাব মন্ত্রিসভা অনুমোদন দিয়েছে।

শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় দিবসটি ‘ক’ শ্রেণীভূক্ত করার প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় পাঠায়। আজ সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়।

ক্রীড়াবিদ, বন্ধুবৎসল, সমাজকর্মী, শিল্প -সাংস্কৃতিক এবং ক্রীড়ানুরাগী শেখ কামাল অদম্য যুবশক্তির প্রতীক। ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও বাংলাদেশের ক্রীড়া ক্ষেত্রে তিনি রেখে গেছেন তাৎপর্যপূর্ণ অবদান।

শহীদ শেখ কামাল কে স্মরনীয় করে রাখতে উদ্যোগ গ্রহণ করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। তাঁর আন্তরিকতায় শহীদ শেখ কামালের ৭১তম জন্মবার্ষিকী এ বছর সরকারিভাবে পালন করে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। দিবসটিকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় পাঠানো হয় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীরই উদ্যোগে। এই ধারাবাহিকতায় শহীদ শেখ কামালে জন্মবার্ষিকী রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপনের অনুমোদন মিলল আজ মন্ত্রিসভার বৈঠকে।

বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠপুত্র শেখ কামালের জন্ম ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে। শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় উৎসাহী শেখ কামাল স্বাধীনতার পর আবির্ভূত হন ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে।
তিনি উপমহাদেশের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন ও আধুনিক ফুটবলের অগ্রদূত আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা।

বহুমুখী প্রতিভার বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামাল ছিলেন বাংলাদেশের ক্রীড়া ও সংস্কৃতি আন্দোলনের পুরোধা , চির তারুণ্যের প্রতীক প্রাণোচ্ছল খোলামনের মানুষ।

মহান মুক্তিযুদ্ধ, ছাত্ররাজনীতি, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, খেলার মাঠ থেকে নাটকের মঞ্চ- সর্বত্র ছিল তাঁর দীপ্ত উপস্থিতি। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকের বুলেটে এই প্রতিভাবান তরুণ শহীদ হন।

পোস্টটি শেয়ার করুন