আসছেন দেশের উন্নয়নের রূপকার, বর্ণিল সাজে সাজছে রাজশাহী

Chapai Chapai

Tribune

প্রকাশিত: ৯:২৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৪, ২০২৩

রাজশাহী প্রতিনিধি: দীর্ঘ ৫ বছর পর আগামী ২৯ জানুয়ারী রাজশাহী আসছেন আধুনিক বাংলাদেশের রুপকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই আগমনকে সামনে রেখে রাজশাহী জুড়ে শুরু হয়েছে সাজ সাজ রব। বর্ণিল সাজে সাজছে ক্লিন সিটি গ্রিন সিটি খ্যাত রাজশাহী মহানগরী। সেই সাথে পুরো বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা গুলোতেও দেখা মিলছে সাজ সজ্জার কাজ। নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে চলছে ২৯ জানুয়ারির প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশাল জনসভা সফল করার কর্মযজ্ঞ। জনসভা সফল করতে ছুটে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন জেলা – উপজেলায়।

জনসভাস্থলের মাঠ পরিদর্শনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন

সাজসজ্জার অংশ হিসেব রাজশাহী মহানগরীজুড়ে দেখা মিলছে সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের চিত্র ব্যনার ও ফেস্টুন। এছাড়াও বিভিন্ন পদধারী নেতাদের বড় বড় ব্যানার ও সরকারের উন্নয়নের চিত্র শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন মোড়ে, রাস্তার পাশের দেওয়াল ও গাছে গাছে।

এমন চিত্র শুধু রাজশাহী মহানগরী জুড়ে নয় নগরীর বাইরে বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় দেখা মিলছে একই চিত্র। এতে করে পুরো রাজশাহী অঞ্চলে প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে যেনো উৎসবের আমেজও বইতে শুরু করেছে।

প্রতিদিন বিভিন্ন উপজেলায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের প্রস্তুতি সভা, প্রচার মিছিল ও লিফলেট বিতরণ অব্যহত রয়েছে।

প্রতিদিন চলছে জনসভার লিফলেট বিতরণ

রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন জায়গা ঘুরে দেখা গেছে, সাহেব বাজার, আলুপট্টি মোড়, কুমারপাড়া, কল্পনা সিনেমা হল মোড়, রেলগেট (শহীদ কামারুজ্জামান চত্ত্বর), নগর ভবন, বর্ণালী মোড়, লক্ষিপুর, সিএ্যান্ডবি মোড়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় সজ্জিত তোরণসহ ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে।

এছাড়াও জেলার গোদাগাড়ী, তানোর, বাগমারা, চারঘাটসহ বিভিন্ন উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও স্থানে তোরণ নির্মান ও মহাসড়কের উপরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়সহ বিভিন্ন নেতাদের ছবি সম্বলিত ফেস্টুন-ব্যানার দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেও ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।
রাজশাহী মহানগর ১৪নং ওয়ার্ড(পশ্চিম) আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ বাবলুর রহমান বাবু বলেন; আগামী ২৯ জানুয়ারি আমাদের জন্য ঈদের দিন মনে হচ্ছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা ও স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার প্রবক্তা দেশরত্ন শেখ হাসিনা রাজশাহীর মাটিতে আসবেন এটাই আমাদের কাছে গৌরবের ও আনন্দের। তৃণমূল নেতাকর্মীরাদের মাঝে ঈদের আমেজ তৈরি হয়েছে।

জনসভা সফল করতে প্রচার মিছিল

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা উপলক্ষ্যে উচ্ছ্বসিত সাধারণ শ্রেণী পেশার মানুষও। নগরীর শাহ আলম নামের এক অটোরিকশা চালক বলেন; প্রধানমন্ত্রীর আসতে এখনও এক সপ্তাহ বাকী তবে এখনই মনে হচ্ছে আগামীকাল ই মনে হয় প্রধানমন্ত্রী আসবেন। নিজেও খুব আনন্দে আছি। আগামী ২৯ তারিখ অটো না চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি, প্রধানমন্ত্রীকে এক পলক দেখার জন্য সকাল সকাল জনসভা স্থলে চলে যাবো।

দলীয় কর্মী না হয়েও তার এত আগ্রহের কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান; বাংলাদেশ কে যিনি আজ বিশ্বে পরিচিত করেছেন, এত এত উন্নয়ন করছেন তাকে দেখার ইচ্ছে অনেক দিনের। দেশের একজন নাগরিক হিসেবে তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে রাজশাহী জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্পন্ন হয়েছে বিভাগীয় প্রতিনিধি সভা। নিয়মিত সফরে আসছেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

জানা গেছে, সর্বশেষ ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি রাজশাহীতে জনসভায় এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজশাহী সফরে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন, সারদা পুলিশ একাডেমি পরিদর্শন শেষে বিকেলে প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন।

প্রধানমন্ত্রীর আগমন ও নিরাপত্তায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা দফায় দফায় বৈঠক করেছে। রাজশাহীজুড়ে নিরাপত্তায় জেলা পুলিশ, মেট্রোপলিটন পুলিশ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন, র‍্যাবসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা মাঠ পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু করেছে। বর্তমান সরকারের মেয়াদের শেষ সময়ে এসে দলীয় প্রধানের সফরকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা।

প্রতিদিন হচ্ছে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের প্রস্তুতি সভা

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ আলী কামাল জানান, দলীয় সভাপতির আগমন উপলক্ষে প্রস্তুতি হিসেবে তারা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। ঐতিহাসিক মাদরাসা মাঠে বিশাল জনসভা অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে ৭ লক্ষাধিক মানুষের অংশগ্রহণের টার্গেট রেখে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আনিসুর রহমান জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। ঢাকা হেড কোয়ার্টারের পরিকল্পনা অনুযায়ী আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে। যে কোনো ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে আগে থেকে সোচ্চার রয়েছে পুলিশ।

এদিকে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার প্রধানমন্ত্রীর এই জনসভা সম্পর্কে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এর মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন আজ মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেছেন; আমরা জনগণ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার আগমনের। তিনি রাজশাহীবাসীকে অনেক অনেক কিছু দিয়েছেন, জনসভা উপলক্ষ্যে তাঁর কিছু বিশেষ কোন দাবি নেই। তাঁর ব্যাপক উন্নয়ন কাজের কৃতজ্ঞতা স্বরুপ জনসভার দিন রাজশাহী নগরী হবে লোকে লোকারণ্য।

পোস্টটি শেয়ার করুন